স্বাস্থ্য

কেন্দ্রে গিয়ে ভ্যাকসিন নিবন্ধন বন্ধ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশে নভেল করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে জাতীয় পর্যায়ে চলমান ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রমে কেন্দ্রে গিয়ে নিবন্ধনের সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ভ্যাকসিন নিতে আগ্রহীদের আগে থেকেই ‘সুরক্ষা (https://surokkha.gov.bd/)’ ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে নিবন্ধন করতে হবে। এরই মধ্যে এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ১০ লাখেরও বেশি মানুষ ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন। তিন লাখের বেশি মানুষ এরই মধ্যে ভ্যাকসিন নিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর একটি হোটেলে পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানান স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, প্রত্যন্ত এলাকার মানুষ, বিশেষ করে যাদের স্মার্টফোন নেই, তাদের জন্য ভ্যাকসিন প্রয়োগ কেন্দ্রে এসে নিবন্ধনের সুযোগ রেখেছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর। কিন্তু নিবন্ধন না করে অনেকেই ভ্যাকসিন নিতে আসায় বিভিন্ন কেন্দ্রে অতিরিক্ত ভিড় তৈরি হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

ভ্যাকদিন প্রয়োগ কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে চালাতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই সুষ্ঠুভাবে ভ্যাকসিন নেওয়া হোক। আমরা বিভিন্ন রকমের জায়গা তৈরি করে দিয়েছি। এই সুন্দর পরিবেশ আমরা তৈরি করেছি। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে যারা অনস্পট রেজিস্ট্রেশন করছেন, তাদের সংখ্যাই বেশি। আর যারা রেজিস্ট্রেশন করছেন, তারাই ঢুকতে পারছেন না। বয়স্ক লোকেরা যাচ্ছেন, তাদের কষ্ট হচ্ছে। যারা ভ্যাকসিন দিচ্ছেন, সেই ডাক্তার-নার্সদের কষ্ট হচ্ছে। আমরা এই পরিস্থিতি চলতে দিতে চাই না।

তিনি বলেন, এ কারণে বলতে চাই— রেজিস্ট্রেশন যেহেতু সফলভাবে চলছে, ১০ লাখের বেশি রেজিস্ট্রেশন হয়েও গেছে, এ কারণে অনস্পট রেজিস্ট্রেশন আর করব না।

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, এখন থেকে যারা নিবন্ধন করে আসবেন, শুধু তাদেরই ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। ভবিষ্যতে যদি ভ্যাকসিন প্রয়োগ কেন্দ্রে নিবন্ধনের প্রয়োজন পড়ে, তখন আবার সেটি বিবেচনায় নিয়ে জানানো হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নিয়ে অনেক সমালোচনা ছিল। তবে এখন আর কোনো সমালোচনা নেই। মানুষের ভ্যাকসিন নেওয়ার আগ্রহ অনেক বেড়েছে। আমি এখন দেখছি যেসব জায়গায় আগে ভিড় কম ছিল, এখন অনেক ভিড়। অনেক লোক যাচ্ছে, মানুষের কনফিডেন্স বাড়ছে। ভ্যাকসিন নিয়েও নানা কথাবার্তা ছিল। মানুষের সমস্ত কথাবার্তা ভুল প্রমাণিত করে, সবার কথার তোয়াক্কা না করে এখন সবাই ভ্যাকসিনের ওপরে আস্থা নিয়ে ভ্যাকসিন নিতে যাচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কার্যক্রম পেপারলেস ঘোষণা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. আলী নূর, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালক সাহান আরা বানু।

সারাবাংলা/এসবি/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button