জাতীয়

চট্রগ্রাম বিভাগের ৫ শ্রেষ্ঠ জয়িতাকে সম্মাননা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: মাত্র দুইশ টাকা নিয়ে ব্যবসা শুরু করা রাঙামাটি পার্বত্য জেলার জয়শ্রী ধরের এখন মাসে আয় দেড় লাখ টাকা। তার প্রতিষ্ঠিত পবন কোঁমর তাঁত শিল্প, রাঙামাটি বুটিকস ও কৃষি খামারে কাজ করছে ২৫ জন নারী কর্মী। জয়শ্রী ধর এ বছর চট্রগ্রাম বিভাগে অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী নারী উদ্যোক্তা ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠ ‘জয়িতা’ নির্বাচিত হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রামের শিল্পকলা একাডেমিতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে পাঁচ শ্রেষ্ঠ জয়িতাকে সম্মাননা দিয়েছে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম বিভাগের শিক্ষা, পেশাগত, অর্থনীতি এবং জননী ক্যাটাগরিতে পাঁচ উদ্যোক্তাকে জননী সম্মাননা দেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

যারা সম্মাননা পেয়েছেন তাদের মধ্যে আছেন- শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে কুমিল্লার মোছা. সুফিয়া আক্তার, সফল জননী ক্যাটাগরিতে চট্রগ্রামের মনোয়ারা বেগম, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করা লক্ষ্মীপুরের শিরিন আক্তার এবং সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার তাসলিমা সুলতানা খানম।

ঢাকা শিশু একাডেমি থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, আবহমান কাল থেকেই নারীরা শোষণ ও বৈষম্যের স্বীকার হয়ে আসছে। জাতির পিতাই এদেশে নারীর অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়ন করেন। ১৯৬৯ সালে জাতির পিতার নির্দেশনায় মহিলা আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। দেশ স্বাধীনের পর তিনি নির্যাতিত নারীদের চিকিৎসা ও তাদের কর্মসংস্থানের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, জয়িতাকে দেশব্যাপী ছড়িয়ে দিতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় নারীবান্ধব বিপণীকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করেছে। দেশে আজ ক্ষুদ্র ব্যবসা ও অনলাইনভিত্তিক ই-কমার্সের জয়জায়কার। তার পেছনে রয়েছে জয়িতা কার্যক্রম ও ডিজিটাল বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ অবদান। তথ্যপ্রযুক্তি সুবিধার কারণে নারী উদ্যোক্তারা সহজে ব্যবসা শুরু করতে পারছে। আজ দেশের শতকরা ৮০ ভাগ ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছেন নারী উদ্যোক্তারা।

চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এ বি এম আজাদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কাজী রওশন আক্তার, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান চেমন আরা তৈয়ব ও জয়িতা ফাউন্ডেশনের এমডি আফরোজা খান।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন চট্রগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত ডিআইজি জাকির হোসেন খান, জেলা প্রশাসক চট্রগ্রাম মোহাম্মদ মমিনুর রহমানসহ বিভগীয় পর্যায়ের কর্মকর্তাবৃন্দ।

সারাবাংলা/জেআর/এমআই


Source link

আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button