খেলা

লংকান বোর্ডের গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন চেয়ে আদালতে মুরালিধরনরা

স্পোর্টস ডেস্ক

শ্রীলংকার সাবেক ক্রিকেটাররা আদালতের কাছে পৌঁছেছে। দাবি লংকান ক্রিকেট বোর্ডের বহু বছরের পুরাতন গঠনতন্ত্রের পরিবর্তনের। আন্তর্জাতিক টেস্ট ক্রিকেটের মর্যাদা পাওয়ার আগে তৈরি গঠনতন্ত্র দিয়ে এখনও চলছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট (এসএলসি)। আর সেই প্রাচীনতম গঠনতন্ত্র যে ত্রুটিপূর্ণ তা বেশ উপলব্ধি করতে পারছেম দলটির সাবেক ক্রিকেটাররা। আর তাই তো এই গঠনতন্ত্রের আমূল পরিবর্তন চেয়ে আদালতে আবেদন করেছেন ১২ জন সাবেক ক্রিকেটার। আর তাদের দলে আছেন কিংবদন্তি স্পিনার মুত্তিয়া মুরালিধরনও।

বিজ্ঞাপন

এসএলসি’র পুরাতন গঠনতন্ত্রকে এখন দুর্বল মনে করছেন এই সাবেক ক্রিকেটাররা। তারা বুঝতে পারছেন দুর্বল গঠনতন্ত্রের কারণে দেশটির ঘরোয়া ক্রিকেটসহ সকল কাঠামো এখন অনেক দুর্বল হয়ে পড়েছে। আর তাই তো দেশের ক্রিকেটের উন্নতির জন্য গোড়া থেকে পরিবর্তন আনার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন সাবেক ক্রিকেটাররা।

এসএলসি’র গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন আনার চেষ্টা অবশ্য এই প্রথম নয়। এর আগেও পরিবর্তনের লক্ষ্যে কাজ করলেও তা ব্যর্থ হয়। তবে এবারেই প্রথমবারের মতো আদালতে পৌঁছেছে ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা। ইতোমধ্যেই এসএলসি ও লংকান ক্রীড়া মন্ত্রীকে নোটিশ পাঠিয়েছে আদালত। আগামী ১৫ মার্চ তাদেরকে এই আবেদনের জবাব দেওয়ার নির্দেশনাও দিয়েছে আদালত।

বিজ্ঞাপন

আদালতের স্মরণাপন্ন হওয়া ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা দেশের ক্রিকেটের নানান ব্যাপার নিয়ে উদ্বিগ্ন। এর ভেতর রয়েছে বোর্ডের নির্বাচনে ভোটের সংখ্যা কঠোরভাবে সীমাবদ্ধ করার কথা হয়েছে। আশা করা হচ্ছে, এতে প্রথম শ্রেণির দলের সংখ্যা কমবে, পূরণ হবে অন্য চাওয়াও। এসএলসির নির্বাচনে ভোট ১৪৮টি। যেখানে শ্রীলঙ্কার চেয়ে প্রায় ৬০ গুণ বেশি জনংসংখ্যার দেশ ভারতের ক্রিকেট বোর্ড-বিসিসিআই’র ভোট সংখ্যা মাত্র ৩৮টি।

আদালয়তের কাছে করা আবেদনে আরও জানানো হয়েছে, ২০১৬ থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ছেলেদের জাতীয় দলের পারফরম্যান্সের অবনতির কারণ বাজেভাবে পরিচালিত ঘরোয়া ক্রিকেট। গঠনতন্ত্রে পরিবর্তন এলে এসএলসির প্রশাসনে নারীদের অংশগ্রহণ বাড়ার পক্ষে সহায়ক হতে পারে। বর্তমানে নির্বাহী কমিটিতে নারী নেই একজনও।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএস


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button