শিক্ষা

চবিতে ভর্তি আবেদন শুরু ৫ এপ্রিল, বেড়েছে আবেদনের যোগ্যতা

চবি করেসপন্ডেন্ট

চট্টগ্রাম ব্যুরো: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু হবে আগামী এপ্রিল মাসে। যা চলবে ৫ এপ্রিল থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত। আবেদন ফি জমা দেওয়া যাবে ২ মে পর্যন্ত। শিক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষায় বসতে সর্বমোট ৪টি ইউনিট ও দু’টি উপ ইউনিটে আবেদন করতে আগের চেয়ে ন্যূনতম শূন্য দশমিক ৫০ বাড়ানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুর ২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ডেপুটি রেজিস্ট্রার একাডেমিক শাখা ও ভর্তি কমিটি সচিব এস এম আকবর হোছাইন সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ সব তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষা আগামী ২২ জুন থেকে ২৪ জুন ও ২৮ জুন থেকে ১ জুলাই এবং ৫ জুলাই থেকে ৮ জুলাই এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ইউনিট ও উপ ইউনিট ভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষার সময়সূচি পরবর্তীতে জানানো হবে বলে উল্লেখ করা হয়।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক এস এম সালামত উল্যা ভূঁইয়া সারাবাংলাকে বলেন, ‘ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ৫ এপ্রিল সকাল ১১টা থেকে ৩০ এপ্রিল রাত ১১.৫৯ মিনিট পর্যন্ত আবেদন করা যাবে। আবেদনের যোগ্যতার ক্ষেত্রে ইউনিটভিত্তিক জিপিএ বাড়ানো হয়েছে ০.৫০ । এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা ফলাফলের ভিত্তিতে ২০ নম্বর যোগ হবে এবং এমসিকিউ ১০০ নাম্বারে পরীক্ষা হবে সর্বমোট ১২০ নম্বরে। তবে আগের মতো ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ কাটা হবে। আমরা ক্যাম্পাসের মধ্যে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে ইউনিট, ডিপার্টমেন্ট বাড়ানোর সম্ভাবনা নেই। সবকিছু আগের মতোই থাকবে।’

আবেদনের যোগ্যতা: বিজ্ঞান অনুষদ, জীববিজ্ঞান অনুষদ, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ এবং সমুদ্রবিজ্ঞান ও মৎস্যবিদ্যা অনুষদের ‘এ’ ইউনিটে’ ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এই ইউনিটে আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে মোট জিপিএ ৮.০০ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে জিপিএ ৪.০০ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

বিজ্ঞাপন

কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ‘বি’ ইউনিট’ ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে বিজ্ঞান শাখার শিক্ষার্থীদের জন্য মোট জিপিএ ৮.০০ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে নূন্যতম জিপিএ ৩.২৫ থাকতে হবে । তবে মানবিক শাখার শিক্ষার্থীদের জন্য মোট জিপিএ ৭.৫০ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে নূন্যতম জিপিএ ২.৭৫। ব্যবসায় শিক্ষা শাখার শিক্ষার্থীদের জন্য সর্বনিম্ন দুটিতে মোট জিপিএ ৮.০০ এবং আলাদাকরে নূন্যতম জিপিএ ৩.২৫ থাকতে হবে।

‘বি ১’ উপ-ইউনিটের অধীনে কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ অধিভুক্ত চারুকলা ইনিস্টিউট, নাট্যকলা বিভাগ ও সঙ্গীত বিভাগের ভর্তি পরীক্ষার আবেদনের জন্যও একই যোগ্যতা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ‘সি ইউনিট’ ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে সর্বনিম্ন দুটি মোট জিপিএ ৮.০০ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে জিপিএ ৪.০০ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

সমাজবিজ্ঞান অনুষদ, আইন অনুষদ, ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ (আংশিক) ও জীববিজ্ঞান অনুষদের দুটি বিভাগের (আংশিক) সমন্বিত ‘ডি ইউনিটে’ ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এখানে আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে সর্বনিম্ন দুটি মোট জিপিএ ৭.৫০ এবং প্রতিটিতে নূন্যতম জিপিএ ৩.৫০ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

বিজ্ঞাপন

‘ডি১’ উপ-ইউনিটের অধীনে শিক্ষা অনুষদের শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগের ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে সর্বনিম্ন দুটি মোট জিপিএ ৭.৫০ এবং প্রতিটিতে আলাদাভাবে জিপিএ ৩.৫ নির্ধারণ করা হয়েছে৷

গত বছরের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের মতো এবারও চারটি ইউনিট ও দুটি উপ-ইউনিটের মাধ্যমে পরীক্ষা নেওয়া হবে। ‘এ’ ইউনিটেভুক্ত বিজ্ঞান, জীববিজ্ঞান, ইঞ্জিনিয়ারিং ও মেরিন সায়েন্সেস অ্যান্ড ফিশারিজ এই চারটি অনুষদ। এখানে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

বিভাগগুলো হলো, রসায়ন, পরিসংখ্যান, গণিত,ফলিত রসায়ন ও কেমিকৌশল, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, পদার্থবিদ্যা, ফার্মেসি, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়ো টেকনোলজি,উদ্ভিদবিদ্যা, প্রাণিবিদ্যা, ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা, মনোবিজ্ঞান, প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ, মাইক্রোবায়োলজি, মৃত্তিকা বিজ্ঞান, বন ও পরিবেশবিদ্যা ইনস্টিটিউট, পরিবেশ বিজ্ঞান, ফিশারিজ, ওশোনোগ্রাফি, মেরিন সায়েন্স।

কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ (বি ইউনিট) উচ্চ মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ সকল বিভাগের শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন।

বিভাগগুলো হলো পালি, সংস্কৃত, ফারসি ভাষা ও সাহিত্য, আধুনিক ভাষা শিক্ষা, বাংলাদেশ স্টাডিজ, বাংলা, ইংরেজি, ইতিহাস, ইসলামের ইতিহাস, দর্শন। তবে সংগীত, চারুকলা ও নাট্যকলা বিভাগে ভর্তি পরীক্ষা দিতে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের আলাদাভাবে বি-১ উপ ইউনিটে আবেদন করতে হবে।

ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ (সি’ ইউনিট) উচ্চ মাধ্যমিকের বাণিজ্য শাখার শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। ডিপার্টমেন্ট হুলো হলো, হিউম্যান রিসোর্চ অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট এবং ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্স্যুরেন্স,অ্যাকাউন্টিং, ম্যানেজমেন্ট, ফাইন্যান্স, মার্কেটিং।

সব গ্রুপের শিক্ষার্থীরা ( সমন্বিত ডি ইউনিট) পরীক্ষা দিতে পারবেন। ডিপার্টমেন্ট গুলো হলো,অর্থনীতি, লোকপ্রশাসন, যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা, সমাজতত্ত্ব, রাজনীতি বিজ্ঞান, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, নৃবিজ্ঞান, ক্রিমিনোলজি অ্যান্ড পুলিশ সায়েন্স ও আইন অনুষদের আইন বিভাগ, ব্যবসায় প্রশাসনের সব বিভাগ, জীববিজ্ঞান অনুষদের ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা এবং মনোবিজ্ঞান বিভাগ রয়েছে।

এছাড়াও শিক্ষা অনুষদভুক্ত শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া বিজ্ঞান বিভাগ (ডি-১ উপ-ইউনিট) সকল গ্রুপের আগ্রহী শিক্ষার্থীরা আলাদাভাবে আবেদন করতে হবে।

গতবছর ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষে ৪টি ইউনিট ও ২টি উপ-ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে। যা ৪৮টি বিভাগ ও ৬টি ইনস্টিটিউটে ৪ হাজার ৯২৬টি আসনে শিক্ষার্থীরা ভর্তি হন। প্রতি আসনে আবেদন করেছিলেন ৫২ জন শিক্ষার্থী।

সারাবাংলা/সিসি/একে


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button