শিক্ষা

এবার পরীক্ষার দাবিতে গার্হস্থ্য কলেজের শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

তিতুমীর কলেজ করেসপন্ডেন্ট

পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে কলেজের গেটের সামনে নীলক্ষেত-আজিমপুর সড়কে অবস্থান নিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের শিক্ষার্থীরা।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল থেকেই তারা সড়কে অবস্থান নিতে শুরু করেন। দুপুর পর্যন্ত তারা সেখানেই অবস্থান করছিলেন।

২০১৯ সালের স্নাতক শেষ বর্ষের পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল আজ বৃহস্পতিবার। কিন্তু শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সোমবারের (২২ ফেব্রুয়ারি) ঘোষণার পর সেই পরীক্ষা স্থগিত করা হয়। বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা বলছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন সাত কলেজের পরীক্ষা স্থগিত করা হলেও সেই সিদ্ধান্ত থেকে কর্তৃপক্ষ সরে এসেছে। তাদের পরীক্ষা যথানিয়মে হচ্ছে। ফলে তাদের পরীক্ষা হতেও বাধা থাকবে কেন?

বিজ্ঞাপন

শিক্ষার্থীরা জানান, সকাল ৭টার দিকে কলেজের সামনে জড়ো হয়ে তারা কলেজের গেটে অবস্থান নেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তারা এখানেই অবস্থান নিয়ে থাকবেন বলে জানান।

কলেজের গেটে শিক্ষার্থীরা অবস্থান নিয়ে একপর্যায়ে কলেজের সামনের সড়কও অবরোধ করেন। এসময় নীলক্ষেত-আজিমপুর সড়কে যানচলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এসময় পুলিশ শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিচার্জ করেছে এবং জোর করে কলেজের ভেতরে ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিজ্ঞাপন

গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের শেষ বর্ষের এক শিক্ষার্থী সারাবাংলাকে বলেন, ‘সকাল সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ সদস্যরা আমাদের ওপর লাঠিচার্জ করেছেন। নারী পুলিশ সদস্যরা আমাদের চুল ধরে জোর করে ক্যাম্পাসের ভেতরে পাঠিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন।’

হামলার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে লালবাগ জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার সানওয়ার হোসেন গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন করছেন। এতে যানচলাচল বন্ধ হওয়ায় দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে সাধারণ মানুষদের। কলেজের শিক্ষকরা এসে আন্দোলনকারীদের বুঝিয়েছেন, কিন্তু তারা শিক্ষকদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেছেন। এরপর কলেজ কর্তৃপক্ষের অনুমতিসাপেক্ষে পুলিশ তাদের সেখান থেকে উঠিয়ে দেয়।’ তবে শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিচার্জ করার অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button