শিক্ষা

বোনাস বৈষম্য নিরসনের দাবি শিক্ষকদের

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: সব ধরনের বৈষম্য নিরসন করে দিয়ে ঈদ বোনাস দেওয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি ও এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ লিয়াজোঁ ফোরাম। লিখিত দাবিনামাতে ঈদের বোনাস বৈষম্য দূর করার পাশাপাশি স্নাতক (সম্মান) পর্যায়ের শিক্ষকদের এমপিওভুক্তি, বদলি প্রথা চালু ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণও রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিবৃতিতে এসব দাবি জানায় শিক্ষকদের এই সংগঠনটি।

বিবৃতিতে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি ও এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ লিয়াজোঁ ফোরামের মুখপাত্র মো. নজরুল ইসলাম রনি এবং বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় মহাসচিব মো. মেজবাহুল ইসলাম প্রিন্স সই করেছেন।

বিজ্ঞাপন

বিবৃতিতে বলা হয়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীরা ৫০ শতাংশ ঈদ বোনাস পান। অথচ শিক্ষকরা ঈদ বোনাস পান ২৫ শতাংশ। অবিলম্বে ২৫ শতাংশের পরিবর্তে পূর্ণাঙ্গ ঈদ বোনাসসহ শিক্ষাব্যবস্থার জাতীয়করণ ঘোষণা করতে হবে।

সরকারি প্রতিষ্ঠানে শতভাগ ঈদ বোনাস দেওয়া হলেও বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তা দেওয়া হয় না উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা দীর্ঘদিন থেকে বিষয়টি সরকারের নজরে আনার চেষ্টা করছি, যেন এই বৈষম্যের একটি সমাধান করা হয়।

বিজ্ঞাপন

এতে আরও বলা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণের এই দুঃসময়ে প্রায় ১১ মাস ধরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় অভিভাবকরা টিউশন ফি দিচ্ছেন না। ফলে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা তাদের বেতন বা সম্মানি ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের অংশ পাচ্ছেন না। এতে তাদের অর্থনৈতিক সংকট চরম পর্যায়ে পৌঁছে গেছে।

অভিভাবকরাও করোনার এই দুঃসময়ে অর্থনৈতিক সমস্যায় তাদের সন্তানদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি করাতে পারছেন না। এ কারণেই শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণ এখন সময়ের দাবি বলে উল্লেখ করেছে শিক্ষক সমিতি ও লিয়াজোঁ ফোরাম।

বিজ্ঞাপন

বেতন-বোনাস বৈষম্য নিরসনসহ জাতীয়করণের দাবিতে শিক্ষকদের আন্দোলন: ফাইল ছবি

সারাবাংলা/টিএস/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button