লাইফস্টাইল

ছাদবাগান বিভ্রান্তি ও সচেতনতা

আহসান রনি

বিগত কয়েক বছর ধরে ডেঙ্গুর বাহক এডিস ইজিপ্টি মশার সম্ভাব্য প্রজননস্থল নিয়ে সচেতনতা বাড়লেও তৈরি হয়েছে কিছু বিভ্রান্তি। এই বিভ্রান্তির অন্যতম কারণ অজ্ঞতা বা গুজবে বিশ্বাস। ডেঙ্গু মশা ছড়ানোর ভয়ে বাড়ি, ছাদ ও বারান্দার টবের গাছ কেটে ফেলা, এমনকি সম্প্রতি জনপ্রিয় হওয়া ছাদবাগান করাও বন্ধ করে দিচ্ছেন শহুরে বাসিন্দারা। ফলে নার্সারিগুলোতেও গাছ বেচা-বিক্রি কমার তথ্যও মিলছে।

বিজ্ঞাপন

অবাক করা ঘটনা হলো—নগর কর্তৃপক্ষ ডেঙ্গু প্রতিরোধে মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করায় মামলা ও জরিমানার আতঙ্কে ভাড়াটিয়াদের জোরপূর্বক ছাদ বা বারান্দায় রাখা টবের গাছ সরিয়ে নিতে বাধ্য করছেন অনেক বাড়িওয়ালা। আবার কৌশলে ছাদ বাগানের গাছ উপড়ে ফেলা বা কেটে ফেলার মতো তথ্যও মিলছে। পাশাপাশি ফ্ল্যাট বাড়িগুলোতেও ওনার্স এসোসিয়েশনের অতি উৎসাহী সদস্যরা অজ্ঞতাবশত সবুজায়ন ধ্বংসে মেতে উঠেছেন, যা শহরের পরিবেশ-প্রতিবেশের জন্য আরেক হুমকি বলে মনে করি।

কী করলে বারান্দা বা ছাদবাগান ডেঙ্গু মশামুক্ত রেখে সবুজায়ন টিকিয়ে রাখা সম্ভব, তা নিয়েই এই লেখা।

বিজ্ঞাপন

প্রথমত, সঠিক পদ্ধতিতে রোপণ করলে ছাদ, বারান্দা বা ঘরের ভেতর রাখা কোনো গাছই ডেঙ্গু মশার বংশ বিস্তারে সহায়ক নয়। কারণ জীবিত গাছের টবে কোনোভাবেই বেশিক্ষণ পানি জমে থাকার সুযোগ নেই। এমন টবে পানি দেওয়ার সর্বোচ্চ দেড় থেকে দুই ঘণ্টার মধ্যেই পুরো মাটি পানি শুষে নিতে পারে। একটি সুস্থ গাছ শিকড়ের সাহায্যে পরবর্তীতে সেই পানি ক্রমান্বয়ে মাটি থেকে গ্রহণ করে নেয়।

বৃষ্টি বা অন্য কোনো কারণে টবে মাত্রাতিরিক্ত পানি জমে গেলেও তা টবের তলায় থাকা পানি নিষ্কাশনের ছিদ্র দিয়ে বেরিয়ে যেতে পারে। আর ছিদ্র দিয়ে নিষ্কাশিত পানি বালি কাদা মিশ্রিত থাকে, যা ডেঙ্গু প্রজননে কোনোভাবেই সহায়ক নয়।

বিজ্ঞাপন

প্রাকৃতিকভাবে মশা প্রতিরোধে কিছু গাছও আছে। যেমন পুদিনা, তুলসী, গাঁদা ফুল, রসুন, লেমনগ্রাস, রোজমেরি, ল্যাভেন্ডারের মতো গাছ মশা-প্রতিরোধী ভূমিকা রাখে। ফলে এসব গাছ ছাদে কিংবা বারান্দায় রাখলেও মশা মুক্ত থাকা যাবে।

ছাদ বাগানের গাছের নিয়মিত যত্ন ও পরিচর্যার নেওয়া হয়। প্রতিদিন পানি সেচ, আগাছা পরিষ্কার, নিড়ানো, বালাই দমনসহ এমন নানা বিষয় বাগান মালিক নিজেই বা নিয়োজিত মালী দ্বারা তত্ত্বাবধান করে থাকেন। এ ক্ষেত্রেও টব বা গাছের গোড়ায় পানি জমে থাকার সুযোগ থাকে না। আর ছাদবাগানের পোকামাকড় দমনে মাঝেমধ্যে কীটনাশক স্প্রে করা হয়, যা মশা বা অন্যান্য ক্ষতিকর মাকড়ের বিস্তার রোধ করতে সহায়তা করে।

বিজ্ঞাপন

তবে কিছু অসতর্কতার কারণে টব বা গাছের গোড়ায় দীর্ঘ সময় পর্যন্ত পানি জমে থাকতে পারে। যেমন প্রতিদিন গাছে পানি দেওয়ার ফলে ক্রমেই টবের মাটির স্তর নিচে নেমে যায়। ফলে বর্ষা মৌসুমে অতিবৃষ্টির কারণে টবের উপরিভাগে অতিরিক্ত পানি জমার সম্ভাবনা থাকে। তবে মাটি দিয়ে সেই টবগুলো ভরাট করে দিলেই পানি জমার সুযোগ আর থাকে না।

অনেকেই ঘর সাজাতে টবে মাটির পরিবর্তে পানিতেও শোভাবর্ধক গাছগুলো সাজিয়ে রাখেন। এক্ষেত্রে স্কচটেপ দিয়ে টবের মুখটি আটকে দিলে মশা জন্মানোর সুযোগ থাকবে না।

বিজ্ঞাপন

গাছে পানি দেওয়ার সময় পরিমিত হারে পানি সেচ দেওয়া উচিত, যাতে ৩০ মিনিটের মধ্যেই মাটি তা শুষে নিতে পারে। এতে টবের উপরিভাগে পানি জমবে না। এছাড়া টবের উপরিভাগে কোকোডাস্ট বা নারিকেলের খোসা বা কাঠের গুড়ো দিলে তা অতিরিক্ত পানি ধরে রাখতে পারে। ফলে টবে পানি জমতে পারে না।

কিছুদিন পরপর টবের তলার পানি নিষ্কাশনের ছিদ্রগুলো পরখ করে নেওয়া উচিত। ছিদ্রগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হলে তা আবার সচল করে দেওয়া উচিত। এতে টবের তলানিতে জমে থাকা পানি সহজেই বেরিয়ে যাবে।

সম্ভব হলে চারা রোপণের সময়ই টবের নিচে অন্তত তিন থেকে পাঁচটি ছিদ্র করে নেওয়া উচিত। টবের মাটি প্রস্তুত করার সময়ও কম্পোস্ট, কোকোডাস্ট বা কাঠের গুড়ো মিশিয়ে নেওয়া যায়। এতে টবের উপরিভাগের পানি দ্রুত নিষ্কাশিত হতে পারে। টবে পানি জমে থাকলে শুধু মশাই নয়, গোড়া পচে মারাও যেতে পারে গাছ। ফলে গাছকে সুস্থভাবে বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থেই গাছের গোড়ায় যাতে দীর্ঘসময় ধরে পানি জমে থাকতে না পারে সেজন্য যথাযথ ব্যবস্থা রাখা আবশ্যক।

লেখক: প্রতিষ্ঠাতা, গ্রিন সেভার্স

সারাবাংলা/আইই


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button