বিনোদন

নারী দিবসের বিশেষ অনুষ্ঠান ‘বিজয়ীনি’

এন্টারটেইনমেন্ট করেসপনডেন্ট

বিশ্বময় নারী সামাজিক ও ধর্মীয় অপশাসনে অবরোধবাসিনী হয়ে দাঁড়িয়েছে। পুরুষশাসিত সমাজে নারীকে অবরুদ্ধ রাখা হয়েছে নানাভাবে। এরপরও যুগে যুগে নারী তার আগল ভেঙে বের হয়ে আসতে চেষ্টা করেছে। নারীরাও এখন পুরুষের সমকক্ষ, নারী আজ তা প্রমাণ করেছে। প্রমাণিত হয়ছে বেগম রোকেয়ার সেই বিখ্যাত বাণী, ‘যাহা যাহা পুরুষ পারিবে, তাহা তাহা নারীও পারিবে।’

বিজ্ঞাপন

এ কথা আজ সত্য বিশ্বময়, সত্য বাংলাদেশে। আজকে বাংলাদেশের সামগ্রিক অর্থনীতির মূল শক্তি হচ্ছে নারী। নারী উৎপাদনে অংশ নিচ্ছে। নারী অফিসে, আদালতে, শাসনে, এমন কি প্রতিরক্ষায়ও নারীর অবদান অনেক। নারী আকাশে উড়ছে, ট্রেন চালাচ্ছে, গাড়ি চালাচ্ছে।

এটিএন বাংলার নারী দিবসের অনুষ্ঠান ‘বিজয়ীনি’ বিশ্বনারী দিবসে নারীর অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। এখানে তিনজন নারীকে উপস্থাপন করা হয়েছে, যারা অসাধ্যকে সাধন করেছেন। তারা নারী সমাজের জন্য দৃষ্টান্ত হতে পারেন। নারী যে কতদূর যেতে পারে, নারীর ক্ষমতা যে কতদূর হতে পারে তার প্রমাণ।

বিজ্ঞাপন

‘বিজয়ীনি’ অনুষ্ঠানটি সাজানো হয়েছে শারীরিক প্রতিবন্ধী হওয়া সত্ত্বেও রিকশা চালিয়ে সংসারের হাল ধরা রোজিনাকে নিয়ে। অনুষ্ঠানে দেখা যাবে সেরিব্রাল পালসিতে আক্রান্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হৃদয় সরকারকে নিয়ে যুদ্ধের জন্য বিশ্বের ১০০ অনুপ্রেরণাদায়ী মায়ের তালিকায় আসন করে নেয়া হৃদয়ের মা সীমা সরকারকে। থাকছেন আরো একজন অদম্য নারী আতিকা রোমা। যিনি গণপরিবহনে নারীর প্রতি হয়রানি রোধে নারীদেরকে স্কুটি প্রশিক্ষণ দিয়ে নারীর চলার পথকে নিরাপদ করেছেন।

ফেরদৌসী আহমেদ চৌধুরী লিপি’র উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেছেন কুইন রহমান। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে বিশেষ অনুষ্ঠান ‘বিজয়ীনি’ প্রচার হবে আগামী ৮ই মার্চ সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এজেডএস


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button