জাতীয়

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার রোধে কাজ করছি: আইনমন্ত্রী

গোলাম সামদানী, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা : আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক এমপি বলেছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার এবং দুর্ব্যবহার নিয়ে যেন কোনো প্রশ্ন না থাকে, কোনো ধরনের বির্তক না থাকে সে জন্য তা দূরীকরণের জন্য আমরা কাজ করছি। সে জন্য আমরা অনান্য দেশে যা হচ্ছে তা নিয়ে হিউমেন রাইটস কমিশনের সঙ্গে আলোপ আলোচনা করছি মূলত বেস্ট প্র্যাকটিসটা দেখার জন্য, তারপর আইনটি নিয়ে আমরা চিন্তাভাবনা করব। সে জন্য আমরা কাজ করছি, যেন এর অপব্যবহার রোধ করা যায়।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (৬ মার্চ) দুপুরে আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক এমপি সারাবাংলাকে এ সব কথা বলেন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি সংশোধিন হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘এমন কথা আমি কখনোই কোথায় বলিনি। আপনারা যদি এসব লিখেন তাহলে কীভাবে হবে?

বিজ্ঞাপন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার কিছু কিছু ক্ষেত্রে, মানুষ কিছু কিছু জায়গায় এমন কিছু মামলা এ আইনে করার চেষ্টা করছেন যা ডিজাটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করা যায় না।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার হচ্ছে গণতান্ত্রিক সরকার। মানুষ যদি কোনো ব্যাপারে তাদের বক্তব্য দেয়, সেখানে যদি একটাও মানুষ দেয় এবং এই বিষয়টা যদি সরকারের কাছে আসে তাহলে সরকার এটি নিয়ে অবশ্য দেখার চেষ্টা করে।’

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি কারাগারে মারা যাওয়া মোশতাক আহমেদ এর মূত্যুর পর এই আইনটি বাতিলের দাবি উঠেছে এই পরিপ্রেক্ষিতে কি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপপ্রয়োগ বন্ধে সরকার উদ্যোগ নিচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাডভোকেট আনিসুর হক বলেন, ‘এই উদ্যোগ আমি আরও আগেই নিয়েছি, আপনারা চেক করে দেখতে পারেন। গত তিন মাস ধরেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে আলাপ আলোচনা চলছে।’

উল্লেখ্য, গত ২৫ ফেব্রুয়ারি (বৃহস্পতিবার) রাত সোয়া ৮টার দিকে অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মুশতাক আহমেদকে মৃত ঘোষণা করেন। তিনি নারায়ণগঞ্জের আড়াই হাজার থানার ছোট বালাপুর এলাকার মো. আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে।

বিজ্ঞাপন

ওইদিন সন্ধ্যায় কারাগারের ভেতর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন মুশতাক আহমেদ। এ সময় তাকে কারা হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে মুশতাক আহমেদকে মৃত ঘোষণা করেন।

মুশতাকের মৃত্যুর পর এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সেই সঙ্গে ডিজিটাল সিকিউরিটি নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি উঠেছে ।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জিএস/একে


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button