বিনোদন

নারী পরিচালকের সংখ্যা নগণ্য

আহমেদ জামান শিমুল

ডয়চে ভেলে এক প্রতিবেদনে ২০১২ সালে বলেছিল, বাংলাদেশে অভিনেত্রীর সংখ্যা অনেক হলেও, পরিচালকের সংখ্যা হাতে গোণা। মজার ব্যাপার হচ্ছে প্রায় এক দশক পরে এ চিত্র খুব একটা পরিবর্তন হয়নি।

বিজ্ঞাপন

তবে নারী নির্মাতাদের হাতে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র, নাটক হয়েছে সমৃদ্ধ। তাদের বেশিরভাগ ছবিই ছিল জীবনমুখী। দেখা গেছে, তাদের পরিচালিত অধিকাংশ ছবির বিষয়বস্তু ছিল নারী। আর নারীর চোখে নারী—সৃষ্টি করেছে অন্য এক আবহ। সাধারণ দর্শকের কাছে তারা পৌঁছে দিয়েছেন নারীর দুঃখ গাঁথা, না বলা কথা, ভালো লাগা, মন্দ লাগা।

তবে সবক্ষেত্রে যে তাদের চলচ্চিত্রের বিষয়বস্তু শুধু নারী ছিল তা না, তারা সমাজের নানা অসঙ্গতি নিয়ে চলচ্চিত্রে কথা বলেছেন, যা এর আগে কোন দিন বলার সাহস পায়নি।

বিজ্ঞাপন

নির্মাণ শৈলী, গল্প বলার ঢং ইত্যাদি কারণে নারী নির্মাতারা যে কোন পুরস্কারে ছিলেন সবসময় এগিয়ে।

এ দেশের চলচ্চিত্রে প্রথম নারী নির্মাতা হচ্ছেন রেবেকা। ‘বিন্দু থেকে বৃত্ত’ দিয়ে ১৯৭০ সালে নির্মাতা হিসেবে তার অভিষেক হয়েছিল। তারপর জাহানারা ভূঁইয়া নির্মাণ করেন ‘সিঁদুর যাবে না মুছে’।

বিজ্ঞাপন

তাদের দুজনের পরে এ দেশে অনেক নারী নির্মাতা এসেছেন। রোজী আফসারী, সুজাতা, সুচন্দা, কবরী, মৌসুমী, সামিয়া জামান, রোজিনার মত নামকরা অভিনয়শিল্পীরা যেমন এসেছেন তেমনি এসেছেন শামীম আকতার, শাহনেওয়াজ কাকলী, নারগিস আক্তার, রওশন আরা নিপার ও রুবাইয়াত হোসেনরা।

নারী নির্মাতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন নারগিস আক্তার—৮টি। তার পরিচালিত ‘মেঘলা আকাশ’, ‘মেঘের কোলে রোদ’, ‘চার সতীনের ঘর’ সকল মহলে প্রশংসিত হয়েছে। এ পরিচালক বহু নাটকও পরিচালনা করেছেন। বেশ কয়েকবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ও আন্তর্জাতিক বহু পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

নাট্য জগতে নারী নির্মাতা হিসেবে ৪ শতাধিক নাটক পরিচালনা করেছেন চয়নিকা চৌধুরী। তিনি সম্প্রতি নির্মাণ করেছেন চলচ্চিত্র ‘বিশ্বসুন্দরী’। নিচ্ছেন দ্বিতীয় চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রস্তুতি।

অভিনয়ে শীর্ষে থাকা অবস্থায় মৌসুমী নির্মাণ করেন ‘কখনো মেঘ কখনো বৃষ্টি’। এরপর নির্মাণ করেন ‘মেহের নেগার’। এরপর বেশকিছু টেলিফিল্ম নির্মাণ করলেও আর ছবি নির্মাণ করেননি।

বিজ্ঞাপন

শামীম আকতার, শাহনেওয়াজ কাকলী, নারগিস আক্তার, রুবাইয়াত হোসেন ও সামিয়া জামানরা নির্মাণের জন্য শুধু দেশের বাইরেও পুরস্কৃত হয়েছেন।

এদের বাইরে চলচ্চিত্র ও নাটক নিয়মিত নির্মাণ করছেন প্রীতি দত্ত, ক্যাথরিন মাসুদ, মেহের আফরোজ শাওন, জেসমিন আক্তার নদী, তানিয়া আহমেদ।

সারাবাংলা/এজেডএস


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button