খেলা

আইরিশদের আরেকবার উড়িয়ে সাইফদের সিরিজ জয়

স্পোর্টস ডেস্ক

ওয়ানডে সিরিজের আগের দুই ম্যাচে তাও চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়তে পেরেছিল আয়ারল্যান্ড উলভস। আজ সেটাও হলো না। বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের বিপক্ষে চতুর্থ ওয়ানডেতে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৮২ রানে গুটিয়ে গিয়ে পরে ৮ উইকেটে ম্যাচ হেরেছে সফরকারীরা।

বিজ্ঞাপন

এই জয়ে এক ম্যাচ বাকি থাকতেই পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজটা জিতে নিল বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। করোনাভীতিতে সিরিজের প্রথম ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়েছিল। দ্বিতীয় ও তৃতীয় ম্যাচ জিতে নিয়েছিল সাইফ হাসানের নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ ইমার্জিং।

আয়ারল্যান্ড উলভস মূলত আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দলের কেতাবি নাম। যে হিসেবে বাংলাদেশ ‘এ’ দলের সঙ্গে সিরিজ খেলার কথা ছিল তাদের। কিন্তু করোনাভাইরাসের আগে অনূর্ধ্ব-১৯ জেতা তরুণ ক্রিকেটাররা কতোটা উন্নতি করল, আর কোথায় কোথায় উন্নতির বাকি আছে তা বুঝতে ইমার্জিং দলকে আইরিশ ‘এ’ দলের বিপক্ষে নামিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। মনে হচ্ছিল, অভিজ্ঞ আয়ারল্যান্ড ‘এ’ দলের বিপক্ষে বুঝি বড় পরীক্ষাতেই পড়তে হবে বাংলাদেশ ইমার্জিং দলকে। কারণ ইমার্জিং দলের বেশিরভাগ সদস্যই সদ্য অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায় পেরুনো। কিন্তু এই তরুণদের বিপক্ষেই এখন পর্যন্ত দাঁড়াতেই পারল না আয়ারল্যান্ড উলভস। একমাত্র চার দিনের ম্যাচটিতে বড় ব্যবধানে হেরে ওয়ানডে সিরিজটাও ইতোমধ্যেই খুইয়ে ফেলল সফরকারীরা।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (১২ মার্চ) মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করতে নেমে শুরু থেকেই বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের বিপক্ষে ধুঁকেছে আয়ারল্যান্ড উলভস। দুই পেসার সুমন খান ও মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ আইরশ টপ অর্ডারকে শক্তভাবে দাঁড়াতে দেননি। ৫৪ রানে চতুর্থ উইকেট হারিয়ে ফেলে সফরকারীরা।

পরে মার্ক আদাইর, রুহান প্যাট্রিয়াসরা প্রতিরোধ গড়তে চেয়েছেন। রাকিবুল হাসান, সাইফ হাসানদের স্পিন সেটা হতে দেয়নি। নিয়মিত উইকেট হারিয়ে ৪৬.২ ওভারে ১৮২ রানে গুটিয়ে গেছে আয়ারল্যান্ড উলভস। সর্বোচ্চ ৪০ রান করেছেন অদাইর। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩২ করেছেন রুহান।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের সফল বোলার পেসার সুমান খান। ৮.২ ওভার বোলিং করে ৩১ রান দিয়ে নিয়েছেন চার উইকেট। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন অপর পেসার মুকিদুল ইসলাম মুগ্ধ ও দুই স্পিনার রকিবুল হাসান, সাইফ হাসান।

পরে জবাব দিতে নেমে নিয়মিত ওপেনার সাইফ হাসান ইনিংসের শুরু করেননি। তানজিদ হাসান তামিমের সঙ্গে ওপেনিং করতে নেমেছিলেন মাহমুদুল হাসান জয়। তানজিদ রান পাননি। মাত্র ২ রান করে আউট হয়েছেন। তিনে নেমে ২ রান করে ফিরেছেন ইয়াছির আলি রাব্বিও। ১০ রানে ২ উইকেট নেই স্বাগতিকদের। তবে শুরুর এই ধাক্কা পরে বুঝতেই দিলেন না জয় ও চারে নামা তৌহিদ হৃদয়।

বিজ্ঞাপন

১৭৬ রানের দুর্দান্ত এক অপরাজিত জুটি গড়ে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছেড়েছেন দুজন। ৪১.৩ ওভারে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে জয়ের জন্য ১৮৬ রান তুলে ফেলে বাংলাদেশ ইমার্জিং দল। ১৩৫ বলে ৮টি চারের সাহায্যে ৮০ রান করে অপরাজিত মাহমুদুল হাসান জয়। ৯৭ বলে ৯টি চারে ৮৮ রান করে অপরাজিত ছিলেন হৃদয়।

সারাবাংলা/এসএইচএস


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button