আইন-বিচার

‘বৈবাহিক সম্পর্কে স্বামীর সম্পত্তি গ্রহণ স্ত্রীর অপরাধ না’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ‘স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক থাকাকালীন কোনো কিছু দেওয়া হলে সেটা অপরাধ বলে গণ্য হবে না। রোমানা বাদিকে তালাক দেওয়ার কারণে তাকে হয়রানির করার উদ্দেশ্যে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে।’

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (১২ মার্চ) বিকেলে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম মাহমুদা আক্তারের আদালতে রিমান্ড শুনানিতে এসব কথা বলে রোমানার আইনজীবী আকরাম ও আবুল বাসার। বিচারক শুনানি শেষে অর্থ আত্মসাৎ, ব্ল্যাকমেইলের মামলায় চিত্রনায়িকা রোমানা ইসলাম স্বর্ণাসহ তিন জনের একদিনের জেলগেটে জিজ্ঞেসাবাদ করার নির্দেশ দেন।

রোমানার আইনজীবীরা বলেন, ‘রোমানের বিরুদ্ধে বাদি এর আগে দাম্পত্য উদ্ধারে মামলা দায়ের করেন। পরবর্তী সেটা তুলে নেওয়া হয়। এরপর প্রতারণার মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। একই বিষয়বস্তু নিয়ে পুনরায় মামলা চলতে পারে। আসামিরা যে টাকা নিয়েছে তা সুনির্দিষ্ট ভাবে উল্লেখ করা হয়নি। রোমানা যা কিনেছেন, তার নিজের আয়ের টাকায়। অভিযোগে যেসব কথা উল্লেখ করা হয়েছে তা সঠিক নয়। বাদির আরেকটি পরিবার রয়েছে। রোমানাও তার লিগ্যাল স্ত্রী ছিলো। এখন ডিভোর্স দেওয়া হয়েছে। স্ত্রীর বিরুদ্ধে এসব মামলা চলে না। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক থাকাকালীন কোনো কিছু দেওয়া হলে সেটা অপরাধ বলে গণ্য হবে না। তাই রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের প্রার্থনা করছি।’

বিজ্ঞাপন

এর আগে বাদি পক্ষের আইনজীবী ওসমান গনি শুনানিতে বলেন, ‘আসামিরা প্রতারক চক্র। তাদের উদ্দেশ্য বিদেশি অর্থসম্পদ দেখে টার্গেট করে সম্পত্তি হাতিয়ে নেওয়া। আসামি রোমানা নিজেকে অসহায় নারী পরিচয় দিয়ে সম্পত্তি আত্মসাৎ করেছে। দেনমোহর হিসাবে নগদ ১০ লাখ টাকা নিয়েছে। এর আগে আসামি একটা যৌতুকের মামলা করেছিলেন, পরে সেটা মীমাংসা হয়ে যায়। পুনরায় সংসার করার কথা থাকলেও সেটা হয়নি। আসামিরা এক জায়গায় থাকে না। তাই টাকা-স্বর্ণ উদ্ধার এবং প্রকৃতি নাম ঠিকানা যাচাইবাছাইয়ে জামিন বাতিল চেয়ে রিমান্ড মঞ্জুরের প্রার্থনা করছি।’

এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানা ইন্সপেক্টর (নিরস্ত্র) মো. দুলাল হোসেন আসামিদের আদালতে হাজির করে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আবেদনের পর বিচারক তাদের রিমান্ড নামঞ্জুর করে একদিনের জেলগেটে জিজ্ঞেসাবাদ করার আদেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

মামলার অপর দুই আসামি হলেন- রোমানার মা আশরাফি আক্তার শেলী (৫৭) এবং রোমানার ছেলে আন্নাফি ইউসুফ ওরফে আনান (২১)।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, রোমানা স্বর্ণার সঙ্গে ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় হয় জুয়েল নামের এক প্রবাসীর। এরপর বিভিন্ন সময় হোয়াটস অ্যাপ-ম্যাসেঞ্জারে তারা যোগাযোগ করতেন। প্রতারণার মাধ্যমে বিয়ে করে তার কাছ থেকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অজুহাতে কোটি টাকারও বেশি অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন রোমানা। অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে মোহাম্মদপুর থানায় প্রতারণার মামলা করেন সৌদিআরব প্রবাসী জুয়েল।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এআই/এমও


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button