স্বাস্থ্য

‘তরুণরা বেশি আক্রান্ত হচ্ছে, পাওয়া যাচ্ছে না আইসিইউ বেড’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশিদ আলম বলেছেন, সম্প্রতি দেশে তরুণদের মধ্যে কোভিড-১৯ সংক্রমণ বেড়েছে। অন্যদিকে এখন যেসব কোভিড-১৯ সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হচ্ছে, তাদের বেশিরভাগেরই নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) প্রয়োজন হচ্ছে। কিন্তু আইসিইউ বেড পাওয়া যাচ্ছে না।

বিজ্ঞাপন

রোববার (১৪ মার্চ) রাজধানীর শ্যামলীতে অবস্থিত ২৫০ শয্যার টিবি হাসপাতালে ওয়ান স্টপ টিবি সেন্টারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক।

অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশীদ আলম বলেন, এখন যেসব কোভিড রোগী রয়েছেন তাদের বেশিরভাগের আইসিইউ প্রয়োজন হচ্ছে। তরুণরাই আক্রান্ত হচ্ছেন বেশি। যাদের কোমর্বিডিটি আছে আগে আমরা দেখেছি— তারাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছিল। কিন্তু এখন দেখছি তরুণ, ভালো ও সুস্বাস্থ্যের অধিকারীরা আক্রান্ত হচ্ছেন।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, গত দু’মাসে আমরা কিছুটা স্বস্তিতে ছিলাম। তাই ওই সময়ে আমার কাছে আইসিইউ বেডের জন্য কোনো অনুরোধ আসেনি। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে প্রতিদিনই কিছু না কিছু ফোন পাচ্ছি, আইসিইউ বেড পাওয়া যাচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, এখন আমরা কোনো স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করছি না। স্বাস্থ্যবিধি অবহেলা করতে থাকলে সামনেই দেশের বিপদ রয়েছে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়ে এরই মধ্যেই স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ দেশের সব হাসপাতালকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলার জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছে বলেও জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক।

তিনি বলেন, দেশের সব বিভাগীয় হাসপাতাল এবং ঢাকায় যতগুলো হাসপাতাল আছে, সেগুলোর পরিচালকদের সঙ্গে বসেছিলাম। তাদের সুবিধা-অসুবিধা, কার কী অবস্থা— আমরা সেগুলো শুনেছি। সেভাবেই আমরা ব্যবস্থা করছি। তাদের বলেছি যে কয়টা বেড আছে, আপনারা রেডি রাখেন। বি রেডি ফর ম্যানেজমেন্ট ফর দ্য কোভিড পেশেন্টস। কোনো যন্ত্রপাতি না থাকলে তা আনতে হবে।

বিজ্ঞাপন

ডিজি হেলথ বলেন, কোভিড-১৯ এর দক্ষিণ আফ্রিকা ও যুক্তরাজ্যের নতুন ধরন বাংলাদেশে সংক্রমণ আরও বাড়াচ্ছে কি না, জিনোম সিকোয়েন্সিংয়ের মাধ্যমে বিষয়টি বিশ্লেষণ করা হচ্ছে।

জনগণকে ভ্যাকসিন গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে অধ্যাপক খুরশিদ আলম বলেন, সরকারের কেনা ভ্যাকসিনের পরবর্তী চালান খুব শিগগিরই দেশে পৌঁছে যাবে। তবে ভ্যাকসিন নেওয়ার পরও স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। প্রথম ডোজ নেওয়ার পর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সেইভাবে তৈরি হয় না। আবার দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পরও এই প্রতিরোধ ক্ষমতা কত দিন স্থায়ী হবে, তা এখনো অনিশ্চিত।

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য অধিদফতরের যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির পরিচালক অধ্যাপক ডা. সামিউল ইসলাম, আইসিডিডিআর,বির শর্ট স্টে ইউনিটের প্রধান ডাক্তার আজহারুল ইসলাম খান, শ্যামলী টিবি হাসপাতালের উপ-পরিচালক মো. আবু রায়হান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

সারাবাংলা/এসবি/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button