জাতীয়

পুনঃস্থাপিত পেনশন ৮ বছর করার দাবি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী কর্মচারীদের পুনঃস্থাপনকৃত পেনশন ১৫ বছরের পরিবর্তে আট বছর করার দাবি জানানো হয়েছে। রোববার (১৪ মার্চ) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এ দাবি জানান গ্রুপের সদস্যরা।

বিজ্ঞাপন

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীদের এলপিআর/পিআরএল শেষ হবার পর হতে ১৫ বছর পর পেনশনে পুনঃস্থাপন করে সরকার গত ২০১৮ সালের ৮ অক্টোবর এক প্রজ্ঞাপন জারি করে। এ প্রজ্ঞাপনের আলোকে একজন শতভাগ পেনশন সমর্পনকারীর বয়স যখন ৭৩ বা ৭৫, তখন তারা পেনশন পুনঃস্থাপনের সুযোগ পেতে পারেন। এতে করে অধিকাংশ কর্মচারীই এ বয়সে পৌঁছানোর আগেই মৃত্যুবরণ করে। ফলে তারা প্রদত্ত সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত হন। অনেকেই গৃহীত আনুতোষিকের অর্থ সংসারে ব্যয় করে এখন নিঃস্ব হয়ে নিদারুন অর্থ-কষ্ট, হতাশা ও দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

শতভাগ পেনশন সমর্পনকারী কর্মচারীদের আর্থিক দুরাবস্থা ও বার্ধক্যের অকাল পরিণতি বিবেচনা করে আর্থিক ও সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিতের জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি করেন তারা।

বিজ্ঞাপন

শতভাগ পেনশন সমর্পণকারী গ্রুপের উপদেষ্টা ও অবসরপ্রাপ্ত সচিব আবদুল ওয়াহাবের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কমিটির যুগ্ম আহবায়ক এআইএম লতিফুল আজম, সদস্য সচিব সোহরাব হোসেন খান, সংবাদ সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক কৃষিবিদ মো. নজরুল ইসলাম, সদস্য ডা. মঈন উদ্দীন আহমেদ, বজলুল হক রানা, মাহফুজুর রহমান, রুশন রেজা, মীর সেলিম, রঞ্জিত কুমার বিশ্বাস, রেজওয়ানুল ইসলাম মুকুল ও ইনতাজ আলী প্রমুখ।

সারাবাংলা/ইএইচটি/এনএস


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button