রাজধানী

জনকণ্ঠে আর কলাম লিখবেন না গাফফার চৌধুরী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: চাকরিচ্যুত সাংবাদিকদের চাকরি ফিরিয়ে না দিলে ভবিষ্যতে আর কখনও দৈনিক জনকণ্ঠে কলাম লিখবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফফার চৌধুরী। সোমবার (১৫ মার্চ) লন্ডন থেকে পাঠানো এক চিঠিতে এ ঘোষণা দেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

জনকণ্ঠের চাকরিচ্যুত সাংবাদিকদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে পাঠানো ওই চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ‘সংবাদ পেলাম দৈনিক জনকণ্ঠ আবার পত্রিকার চল্লিশজনের মতো সাংবাদিক ও অন্যান্য স্টাফকে অন্যায়ভাবে বরখাস্ত করেছেন। তাদের অপরাধ- তারা তাদের ন্যায্য বেতন ভাতা দাবি করেছেন। এই দুর্দিনে পরিবার-পরিজন নিয়ে এই চাকুরিচ্যুত সাংবাদিকেরা এখন অনাহারের সম্মুখীন। এখন তারা এই অন্যায়ের প্রতিবাদে আন্দোলনে নেমেছেন এবং দেশের সাংবাদিক সমাজ তাদের বাঁচার লড়াইয়ে সমর্থন জানাচ্ছেন। আমি জনকণ্ঠে দীর্ঘকাল ধরে কলামিস্ট। পত্রিকাটির নীতি ও আদর্শের প্রতি আমি শ্রদ্ধাশীল। কিন্তু পত্রিকা কর্তৃপক্ষের এই অন্যায়ের প্রতিবাদ না জানিয়ে পারছি না। আমি আমার সংগ্রামী ভাইদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করছি এবং এই সিদ্ধান্ত জানাচ্ছি, তাদের প্রতি আচরিত দারুণ অন্যায়ের প্রতিকার অবিলম্বে করা না হলে জনকণ্ঠে আমি আর ভবিষ্যতে কলাম লিখব না।’

এর আগে সোমবার (১৫ মার্চ) সাংবাদিক-কর্মচারীদের ই-মেইলে টার্মিনেশন লেটার পাঠাতে থাকে জনকণ্ঠ কর্তৃপক্ষ। বিকেল থেকে ভবনটির সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন জনকণ্ঠের সাংবাদিক-কর্মচারী ও সাংবাদিক নেতারা। সন্ধ্যা থেকে রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন করতে থাকেন বিক্ষুব্ধরা। পরে রাত একটার দিকে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা আসে। প্রায় শ’খানেক সাংবাদিক-কর্মচারীদের চাকরিচুত্য করার কথা বলা হলেও জনকণ্ঠ কর্তৃপক্ষ আনুষ্ঠানিকভাবে জানায়, তারা ২৬ জনকে চাকিরচুত্য করতে বাধ্য হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

এদিকে মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) এক সংবাদ সম্মেলন করে চাকরি ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন চাকরিচ্যুত জনকণ্ঠের সাংবাদিক-কর্মচারীরা।

সারাবাংলা/ইএইচটি/পিটিএম


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button