স্বাস্থ্য

টানা ৭ম দিনে সংক্রমণ সহস্রাধিক, মৃত্যু আরও ২৬ জনের

সারাবাংলা ডেস্ক

দেশে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণের গতি কমছেই না। গত ২৪ ঘণ্টাতেও নতুন সংক্রমণের পরিমাণ ছাড়িয়ে গেছে এক হাজার সাতশ। এ নিয়ে দেশে গত ১০ মার্চ থেকে আজ টানা সপ্তম দিনের মতো ২৪ ঘণ্টায় হাজারের বেশি নতুন সংক্রমণ শনাক্ত হলো। এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টাতেও আগের দিনের মতোই করোনা সংক্রমণ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের। এছাড়া নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার এদিন ছিল ৮ শতাংশের বেশি।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার (১৬ মার্চ ) স্বাস্থ্য অধিদফতরের কোভিড ইউনিটের পরিচালক ডা. মো. ইউনুসের সই করা প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের ২১৯টি পরীক্ষাগারে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে আরটি-পিসিআর ল্যাব ১১৮টি, জিন-এক্সপার্ট ল্যাব ২৯টি, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন ল্যাব ৭২টি। ল্যাবগুলোর মধ্যে সরকারি ল্যাবের সংখ্যা ১৫০টি, বেসরকারি ল্যাব ৬৯টি।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ২০ হাজার ৯৩৬টি। এর মধ্যে পরীক্ষা হয়েছে ২০ হাজার ৯৩৬টি। এ নিয়ে দেশে ৪৩ লাখ ৩ হাজার ৯৯৪টি নমুনা পরীক্ষা হলো। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩২ লাখ ৮৮ হাজার ২৬৪টি, বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১০ লাখ ১৫ হাজার ৭৩০টি।

গত ২৪ ঘণ্টায় যেসব নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, তার মধ্যে এক হাজার ৭১৯টি নমুনায় করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে ৫ লাখ ৬০ হাজার ৮৮৭ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হলো। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৮ দশমিক ২৯ শতাংশ। এখন পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ০৩ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় যে ২৬ জন করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে মারা গেছেন, এ নিয়ে মোট ৮ হাজার ৫৯৭ জনের মৃত্যু হলো। শনাক্তের বিপরীতে মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫৩ শতাংশ।

একই সময়ে করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়েছেন এক হাজার জন ৩৫২। এ নিয়ে মোট ৫ লাখ ১৪ হাজার ৪৭৯ জন করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়েছেন। সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় যে ২৬ জন করোনা সংক্রমণ নিয়ে মারা গেছেন, তাদের মধ্যে পুরুষ ১৭ জন এবং নারী ৯ জন। তারা সবাই হাসপাতালে মারা গেছেন। তাদের মধ্যে ষাটোর্ধ্ব ২৬ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছর বয়সী আট জন। এছাড়া ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী তিন জন মারা গেছেন। এর মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১২ জন, চট্টগ্রামের পাঁচ জন। তিন জন করে মারা গেছেন খুলনা ও বরিশাল বিভাগের। এছাড়া রংপুরে দুই জন ও সিলেটে একজন মারা গেছেন করোনা সংক্রমণ নিয়ে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত দেশে মোট ৫৮ লাখ ৫৭ হাজার ৯৭১ জন করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন। এর মধ্যে সোমবার (১৫ মার্চ) পর্যন্ত ভ্যাকসিন নিয়েছেন মোট ৪৪ লাখ ৮৫ হাজার ৯৫৪ জন।

বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাস সংক্রমণসহ স্বাস্থ্য বিষয়ক জরুরি প্রয়োজনে ১৬২৬৩, ৩৩৩ ও ১০৬৫৫ নম্বরে কল করতে বলা হয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পক্ষ থেকে। পাশাপাশি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলা হয়েছে। যারা আগে থেকেই দীর্ঘ মেয়াদি বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত, তারা ও বয়োজ্যেষ্ঠরা করোনা পজিটিভ হলে তাদের দ্রুত হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

সারাবাংলা/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button