অপরাধ

এমএলএমের নামে কোটি টাকার প্রতারণা, গ্রেফতার ৩

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসার নামে প্রতারণার অভিযোগে নিওলাইফ গ্লোবাল প্রাইভেট লিমিটেড নামে প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ তিন জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। প্রায় বছর খানেক ধরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টির আড়ালে এ ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল চক্রটি। এরই মধ্যে তারা হাতিয়ে নিয়েছে কোটি টাকা।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) দুপুরে সিআইডি সদর দফতরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান। তিনি জানান, গতকাল বুধবার (১৭ মার্চ) রাজধানীর মালিবাগ থেকে চক্রের সদস্যদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার তিন জন হলেন— নিওলাইফ গ্লোবাল প্রাইভেট লিমিটেডের এমডি ও সিইও মো. নূরুল আমীন (৪০), ফিন্যান্স ডিরেক্টর মো. রিয়াজ উদ্দীন (৩৫) ও হেড অব মার্কেটিং মঞ্জুরুল ইসলাম রাসেল (৩৫)।

বিজ্ঞাপন

এমএলএমের নামে কোটি টাকার প্রতারণা, গ্রেফতার ৩

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার সাইদুর রহমান বলেন, নিওলাইফ গ্লোবাল প্রাইভেট লিমিটেড এক বছরের বেশি সময় ধরে এমএলএম ব্যবসার নামে প্রতারণা করে আসছে। তারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় সেমিনার আয়োজন করে ঘোষণা দেয়, ৪০ লাখ টাকার পণ্য কিনতে পারলে প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে একটি গাড়ি দেওয়া হবে। এছাড়া এক কোটি ৩৫ লাখ টাকার পণ্য কিনলে ডায়মন্ড পদবী দেওয়া হবে, যা দিয়ে প্রতিমাসে চার থেকে পাঁচ লাখ টাকা উপার্জন সম্ভব। এভাবেই শত শত ব্যক্তিকে ডায়মন্ড পদবী দেওয়ার কথা বলে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি।

বিজ্ঞাপন

সিআইডি কর্মকর্তা বলেন, গ্রেফতার তিন জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গেছে, একসময় কোম্পানির ওয়েবসাইট থেকে সব তথ্য মুছে দিত তারা।

চক্রটিকে গ্রেফতারের কথা জানিয়ে সিআইডি’র এই কর্মকর্তা বলেন, প্রতারক চক্রটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে প্রতারণা করে আসছিল। এ কারণে তাদেরকে শনাক্ত করতে কিছুটা বেগ পেতে হয়। এই প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এই চক্রের সঙ্গে আরও যারাই জড়িত থাকুক না কেন, কাউকে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

বিজ্ঞাপন

এক প্রশ্নের জবাবে সিআইডির এই কর্মকর্তা বলেন, অপরাধের সংশ্লিষ্টতা পাওয়ায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। এই চক্রটি ৩০ টাকা দরে মাগুরা থেকে মাশরুমের পণ্য গ্রাম্য ডাক্তার দিয়ে প্রস্তুত করে প্রতি ফাইল ১ হাজার ৫৬০ টাকা দরে পরিবেশক বানিয়ে তাদের মাধ্যমে বিক্রি করত। প্রতারণার অন্যতম কৌশল ছিল মাশরুম বিক্রি।

তিনি আরও বলেন, তারা সরকারের অনুমতি ছাড়াই নিওলাইফ গ্লোবাল প্রাইভেট লিমিটেড নামক প্রতিষ্ঠানটি পণ্য বিক্রির আড়ালে ভয়ংকর প্রতারণা চক্র গড়ে তোলে। এর বিষয়ে আরও খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে, তদন্ত চলছে।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএইচ/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button