জাতীয়

‘দেশকে ম্লান করার হীন ষড়যন্ত্র কঠোর হাতে দমন করা হবে’

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দেশকে ম্লান করার কোনো ধরনের হীন ষড়যন্ত্র বা গণ্ডগোল তৈরির চেষ্টা হলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, আমরা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলতে চাই— এ ধরনের ষড়যন্ত্র আগেও বহুবার হয়েছে। ঢাকা শহরে ষড়যন্ত্র করে কোরআন শরিফে আগুন দেওয়া হয়েছে। বায়তুল মোকাররমে আগুন দেওয়া হয়েছে। সেই অপরাধীদের বিচার হয়েছে, বিচার চলছে। আজকেও যারা এ ধরনের গণ্ডগোল পাকাতে চাইবে, তাদেরও কঠোর হাতে দমন করতে আমরা বদ্ধপরিকর।

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) রাজধানীর নগরভবন প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

বিজ্ঞাপন

‘দেশকে ম্লান করার হীন ষড়যন্ত্র কঠোর হাতে দমন করা হবে’

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রথমে একটি মৌলবাদী গোষ্ঠী বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে দেশে একটি গণ্ডগোল পাকানোর চেষ্টা করল। তাদের বাতাস দিলো বিএনপি-জামায়াত। আজ যখন বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালিত হচ্ছে, বিদেশি মেহমানরা দেশে আসতে শুরু করেছেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসার সময় হয়েছে, তখন আবার নতুন খেলা শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, আজ যখন বঙ্গবন্ধুকন্যার নেতৃত্বে দেশ অদম্য গতিতে এগিয়ে চলেছে, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষে যখন আমরা জাতিসংঘের ফাইনাল রিকমেন্ডেশন পেলাম যে বাংলাদেশ এখন মধ্যম আয়ের দেশ, তখন দেশকে নিয়ে নানা ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। কিন্তু কোনো ধরনের ষড়যন্ত্র সহ্য করা হবে না। সব ধরনের ষড়যন্ত্র কঠোরভাবে দমন করা হবে।

বিজ্ঞাপন

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অর্জনকে এবং এ দেশের উন্নয়নের প্রশংসায় পঞ্চমুখ বিদেশি মেহমানদের সামনে দেশকে ম্লান করার ও দেশকে অস্থিতিশীল করার হীন উদ্দেশ্যেই সুনামগঞ্জের শাল্লায় সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

‘দেশকে ম্লান করার হীন ষড়যন্ত্র কঠোর হাতে দমন করা হবে’

হাছান মাহমুদ এসময় পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের হত্যাকাণ্ডের সময় মেয়র ফজলে নূর তাপসের পিতা শেখ ফজলুল হক মণি ও মাতা আরজু মনির মৃত্যুর কথা স্মরণ করলে সভায় ভাবাবেগজড়িত আবহ তৈরি হয়।

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ২০০১ সালের নির্বাচনের রাত থেকেই পাঁচ বছর বাংলাদেশের ওপর কী নির্যাতন-নিপীড়ন চলেছে! বাংলাদেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী-সমর্থক-ভোটার সবাইকে নির্যাতন করা হয়েছিল, যেন আমরা ঘুরে দাঁড়াতে না পারি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আবারও ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

‘দেশকে ম্লান করার হীন ষড়যন্ত্র কঠোর হাতে দমন করা হবে’

ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, পঁচাত্তরের পর বিভিন্ন চক্র এ দেশের স্বাধীনতার ইতিহাস, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও বঙ্গবন্ধুকে মুছে ফেলার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু আজ প্রমাণিত, বঙ্গবন্ধুকে মুছে ফেলা যায় না। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বাঙালি জাতির অন্তরের অন্তঃস্থলে বাস করেন। যিনি স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন, যিনি ইতিহাস রচনা করেছেন, তিনি চিরন্তন।

আলোচনা সভায় বক্তব্য পর্বের আগে ডিএসসিসির অধীন হাসপাতাল ও মাতৃসদনে আজ জন্ম নেওয়া ২২ শিশুকে নাগরিক সম্মাননা দেওয়া হয়। পরে অতিথি ও উপস্থিত সবাই ডিএসসিসির সংগীত শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, লেজার প্রদর্শনী ও বর্ণিল আতশবাজি উপভোগ করেন।

ছবি: সুমিত আহমেদ

সারাবাংলা/জেআর/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button