আইন-বিচার

বিচারপ্রার্থীর দুর্ভোগ কমাবে এসএমএস সার্ভিস — আইনমন্ত্রী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: ফৌজদারি মামলার ক্ষেত্রে বিদ্যমান সমন জারি প্রক্রিয়ার পাশাপাশি সাক্ষীর মোবাইল ফোন নম্বরে এসএমএস সার্ভিসের মাধ্যমে মামলার তারিখসহ অন্যান্য তথ্য জানানো সম্ভব হলে বিচারপ্রার্থী জনগণ এবং রাষ্ট্র উভয় পক্ষেরই দুর্ভোগ ও হয়রানি কমবে বলে মনে করছেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) সচিবালয়ে ফৌজদারি মামলার সমন জারির এসএমএস সার্ভিসের পাইলট প্রকল্প উদ্বোধন করতে গিয়ে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে মামলার দীর্ঘসূত্রিতার অন্যতম কারণ আদালতে সময়মত সাক্ষীর হাজির হতে না পারা। সাক্ষীর অনুপস্থিতির অন্যতম কারণ হলো সময়মত সমন না পাওয়া। এর পিছনেও অনেক কারণ রয়েছে। এসএমএস সার্ভিসের মাধ্যমে মামলার কার্যক্রম জানানো সম্ভব হলে তা ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, এই সার্ভিসের মাধ্যমে মামলার সাক্ষীরা আদালতে বিচারাধীন মামলার তারিখ দ্রুততম সময়ে ও সহজে জানতে পারবেন। যেহেতু ইলেকট্রনিক পদ্ধতিতে এবং মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মেসেজ যাবে তাই কেউ মেসেজ পেয়ে অস্বীকারও করতে পারবেন না। এতে করে মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে স্বাক্ষীদের মধ্যেও এক ধরনের দায়বদ্ধতা তৈরি হবে। যা আদালতে সময়মত সাক্ষী উপস্থাপন ত্বরান্বিত করবে। এর মধ্য দিয়ে স্বল্প সময়ে ও সহজে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবে।

আনিসুল হক বলেন, পাইলট ভিত্তিতে কুমিল্লা ও নরসিংদীতে সমন জারির এসএমএস পদ্ধতি চালু করা হলো। এখন আদালতে কোনো মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ হলে তা ডিজিটাল সিস্টেম ব্যবহার করে সাক্ষীদেরকে জানানো হবে। পাশাপাশি, বর্তমানে প্রচলিত পদ্ধতিতেও সমন পাঠানো হবে। পাইলট ভিত্তিতে গৃহীত এ কার্যক্রম পর্যালোচনা এবং এই প্রকল্পের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ক্রমেই সারাদেশে এ কার্যক্রম বিস্তৃত করা হবে।

বিজ্ঞাপন

অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় বলেন, এসএমএস সার্ভিসের মাধ্যমে মামলার তারিখ সাক্ষীকে জানানোর বিষয়টি ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রযাত্রায় আরও একটি ঐতিহাসিক মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হবে। তিনি বলেন, লকডাউনের মধ্যে ভার্চুয়াল আদালত পরিচালনা এবং এসএমএস সার্ভিসের মাধ্যমে বিচার বিভাগের যে যাত্রা শুরু হলো এর প্রভাব সুদূরপ্রসারী।

এদিকে, আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ারের সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেন, আইনসভা ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিব মো. মইনুল কবির, কুমিল্লার জেলা ও দায়রা জজ মো. আতাবুল্লাহ, নরসিংদীর জেলা ও দায়রা জজ মোসতাক আহমেদ, টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাহাব উদ্দীন বক্তব্য রাখেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জেআর/একেএম


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button