জাতীয়

একাত্তরের ১৯ মার্চ ছিল টার্নিং পয়েন্ট: আ ক ম মোজাম্মেল

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: মুক্তিযুদ্ধের সময়কার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, একাত্তরের স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম এক টার্নিং পয়েন্ট ছিল ১৯ মার্চের দিনটি। এই দিনে গাজীপুর আর্মি ক্যাম্প থেকে পাকিস্তানি বাহিনী অস্ত্র নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করলেও বাঙালির প্রতিরোধের মুখে তারা সেটি পারেনি। সেদিন পাকিস্তানের অস্ত্র নিয়েই আমরা গুলি করেছি।

বিজ্ঞাপন

বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় ১৯ মার্চ ১৯৭১ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধের ঘটনার স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এসব কথা বলেন মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, পাকিস্তানিরা ভেবেছিল, বাঙালি সৈনিকের কাছে অস্ত্র থাকা নিরাপদ না। তবে তারা মুখে বলেছিল, ঢাকায় অস্ত্র সংকটের কারণে এখান থেকে অস্ত্র নিয়ে যাবে। কিন্তু আমাদের সশস্ত্র বিদ্রোহের মুখে তারা সেটি পারেনি। আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও ওই সশস্ত্র গণবিদ্রোহের খবর গুরুত্ব দিয়ে প্রকাশিত হয়েছিল। এ গৌরবের দিনটি শুধু গাজীপুরবাসীর জন্য নয়, সমস্ত জাতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

বিজ্ঞাপন

গাজীপুরে মুক্তিযুদ্ধ ঘিরে সাংগঠনিক তৎপরতার কথা উল্লেখ করে আ ক ম মোজাম্মেল বলেন, যখন পাকিস্তানিরা বাঙালির স্বার্থকে উপেক্ষা করে আসছিল, তখন আমরা বঙ্গবন্ধুর কাছে পরামর্শ চাই। তিনি আমাদের প্রতিহত করার নির্দেশনা দিয়েছিলেন। তার কাছ থেকে সংকেত পেয়েই আমরা পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রামের জন্য মানসিক ও সাংগঠনিকভাবে প্রস্তুত হই। আমরা যে সংগ্রাম বাহিনী তৈরি করেছিলাম, সেখানে আমি আহ্বায়ক ছিলাম। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান কোষাধ্যক্ষ ছিলেন। আমাদের সঙ্গে ছিলেন রাজনৈতিক, শ্রমিকসহ সব মহলের মানুষ।

গাজীপুরের প্রথম সশস্ত্র সংগ্রামের কথা তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালের ১৯ মার্চের আগে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যতগুলো সংগ্রাম হয়েছে, তার সবগুলোই ইট-পাটকেল বা লাঠিসোটা নিয়ে লড়াই কিংবা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। সেসব হামলায় অনেকেই প্রাণ হারালেও অস্ত্র হাতে বাঙালির পাল্টা প্রতিরোধ দেখা যায়নি। বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে ১৯ মার্চ গাজীপুরে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তোলা হয়েছিল। ইতিহাসের সাক্ষী হিসেবে এ দিনটির রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি প্রয়োজন।

বিজ্ঞাপন

১৯ মার্চ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ দিবস উদযাপন পরিষদ, বাংলাদেশ সাংবাদিক অধিকার ফোরাম ও গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়ন যৌথভাবে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

১৯ মার্চ প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ দিবস উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুনের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান। এতে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য শামসুন নাহার, অধ্যাপক আবদুল বারী, গাজীপুর অফিসার্স ফোরাম, ঢাকার সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. আজহারুল  হক, বিজেআরএফের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া, গাজীপুর সাংবাদিক ইউনিয়নের সহসভাপতি এম এ সালাম শান্ত।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/জেআর/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button