রাজনীতি

দোয়া, আলোচনায় এরশাদের ৯২তম জন্মদিন পালন করল জাপা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভা ও কেক কাটাসহ নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রয়াত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে স্মরণ করেছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) নেতাকর্মীরা।

বিজ্ঞাপন

এরশাদের ৯২তম জন্মদিন উপলক্ষে শনিবার (২০ মার্চ) সকাল ৮টা থেকেই জাপার বনানী ও কাকরাইল কার্যালয়ে কোরআন তেলওয়াতের আয়োজন করা হয়। আলোকসজ্জা করা হয়েছে কার্যালয় দু’টিতে।

এরশাদের জন্মদিন উপলক্ষে বনানীতে ছিল স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি। দুপুর ১২টায় জাপার বনানী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। সভায় সভাপতিত্ব করেন পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। এসময় জাতীয় যুব সংহতির আনা বিশাল আকৃতির কেক কাটা হয়।

বিজ্ঞাপন

আলোচনা সভায় বাবলু তার বক্তব্যে বলেন, দেশে কোনো মানুষের নিরাপত্তা নেই। সংখ্যালঘুদের বাড়ি-ঘরে হামলা হচ্ছে সরকারের সুবর্ণজয়ন্তীর ‘উপহার’। একদলীয় শাসন ব্যবস্থায় সরকারের সমর্থন ছাড়া সংখ্যালঘুদের ওপর কেউ হামলা করতে পারে— এটা সাধারণ মানুষ বিশ্বাস করে না। যারাই হামলা করেছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এসময় আরও বক্তব্য রাখেন পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা, সুনীল শুভরায়, এস এম ফয়সল চিশতী, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, আব্দুস সাত্তার মিয়াসহ অন্যরা।

বিজ্ঞাপন

দুপুরে পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার উদ্যোগে শ্যামপুর বালুর মাঠে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু। সভা শেষে এরশাদের জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা হয়। পরে দুই সহাস্রাধিক মানুযের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। এসময় বক্তব্য রাখেন পাটির কেন্দ্রীয় নেতা জহিরুল আলম রুবেল, সালমা হোসেন, সুজন দে, শেখ মাসুক রহমান, শারফুদ্দিন আহামেদ শিপুসহ অন্যরা।

বিকেলে এরশাদের সহধর্মিণী ও সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা রওশন এরশাদের গুলশানের বাসভবনে আয়োজন করা হয় দোয়া মাহফিল। এতে রওশন এরশাদ ছাড়াও জাপা চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, মশিউর রহমান রাঙ্গা, ফয়সল চিশতী, এরশাদ পুত্র রাহগীর আলমাহী এরশাদ, ফখরুল ইমাম, সালমা ইসলাম, রওশন আরা মান্নানসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

সন্ধ্যায় জাপার কাকরাইল কার্যালয়ে পৃথক আলোচনা সভার আয়োজন করে জাপা ঢাকা মহানগর দক্ষিণ, জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টি ও জাতীয় ছাত্র সমাজ। এসময় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির উদ্যাগে ৯২ পাউন্ডের কেক কাটেন জি এম কাদের। এরপর ঢাকা মহানগর দক্ষিণ, জাতীয় ছাত্র সমাজ, জাতীয় কৃষক পার্টির কেক কাটেন প্রয়াত এরশাদের সহোদর ও পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের।

এসময় জিএম কাদের বলেন, দেশে বৈষম্যের রাজনীতি চলছে। মেধাবীরা আজ মূল্যায়িত হচ্ছে না। বৈষম্যের প্রতিবাদেই স্বাধীনতা যুদ্ধ হয়েছিল। সরকারি দলের লোক না হলে মুল্যায়িত হচ্ছে না। বিএনপি ও আওয়ামী লীগের আমলেই আমরা দুর্নীতিতে বিশ্বচ্যাম্পিয়ান হয়েছি। মানুষ এ থেকে পরিত্রাণ চায়।

বিজ্ঞাপন

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, পল্লীবন্ধু এরশাদ আমৃত্যু দেশের জন্য ভালো কিছু করার চেষ্টা করেছেন। এ কারণে মৃত্যুর পরও তিনি জনগণের ভালোবাসা পেয়েছেন, সর্ব্বোচ্চ সম্মান পেয়েছেন।

এসময় পার্টির মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু ছাড়াও জাপা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সাধারণ সম্পাদক জহিরুল আলম রুবেল, পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব ও স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি লিয়াকত হোসেন খোকা, সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেন, কৃষক পার্টির সভাপতি সাহিদুর রহমান টেপা, জাতীয় ছাত্র সমাজের সভাপতি ইব্রাহীম খান জুয়েল, সাধারণ সম্পাদক আল-মামুনসহ পার্টির বিভিন্নস্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এরশাদের জন্মদিন উপলক্ষে সন্ধ্যায় পৃথকভাবে আলোচনা সভা আয়োজন করে ও কেক কাটে এরশাদ ট্রাস্টি বোর্ড। জাপার বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের এই অনুষ্ঠানে আসার আহ্বান জানানো হলেও পার্টির কোনো নেতাকর্মীকে দেখা যায়নি।

সারাবাংলা/এএইচএইচ/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button