শিক্ষা

পোড়ানোর আগেই মোদির কুশপুত্তলিকা ছিনিয়ে নিয়েছে ছাত্রলীগ

ঢাবি করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: পোড়ানোর জন্য তৈরি করা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কুশপুত্তলিকা শেষ পর্যন্ত পোড়াতে পারেনি ছাত্র ফেডারেশনের নেতাকর্মীরা। তার আগেই ছাত্রলীগের প্রায় অর্ধশত নেতাকর্মী তাদের কাছ থেকে কুশপুত্তলিকাটি ছিনিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসার কথা রয়েছে। তার আগমনের প্রতিবাদ জানিয়ে মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বরে তার কুশপুত্তলিকা পোড়ানোর কর্মসূচি ঘোষণা করে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন।

পূর্বঘোষণা অনুযায়ী বেলা সাড়ে এগারোটা নাগাদ কুশপুত্তলিকা নিয়ে টিএসসি চত্বরে জড়ো হয় ফেডারেশনের নেতাকর্মীরা। এ সময় রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থান নেওয়া ছাত্রলীগের ত্রিশ-চল্লিশ জনের একটি দল এসে ফেডারেশন নেতাকর্মীদের কাছ মোদির কুশপুত্তুলিকা কেড়ে নেয়। তবে ছাত্রলীগের এই দলটির কারও পরিচয় জানতে পারেননি বলে জানান ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি গোলাম মোস্তফা।

বিজ্ঞাপন

পোড়ানোর আগেই মোদির কুশপুত্তলিকা ছিনিয়ে নিয়েছে ছাত্রলীগ

তিনি সারাবাংলাকে বলেন, আমাদের পাঁচ-সাত জন কর্মী কুশপুত্তলিকা নিয়ে টিএসসির গেইটের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলাম। পরে রাজু ভাস্কর্যের ওই দিক থেকে ছাত্রলীগের ৩০ থেকে ৪০ জনের একটি দল এসে কুশপুত্তলিকাটি কেড়ে নেয়। পরে তারা মোটর সাইকেলে করে পালিয়ে যায়।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনার মধ্য দিয়ে ছাত্রলীগ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির করা সকল অপকর্মের সমর্থন দিয়েছে উল্লেখ করে গোলাম মোস্তফা বলেন, এক সন্ত্রাসী আরেক সন্ত্রাসীকে সমর্থন দিচ্ছে। এটা ছাত্রলীগের একটি রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত কাজ। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

পরে কুশপুত্তলিকার পরিবর্তে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ছবি পোড়ায় ছাত্র ফেডারেশনের নেতাকর্মীরা। ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে টিএসসি থেকে একটি মিছিল বের করে সংগঠনটি। মিছিলটি রাসেল টাওয়ার হয়ে ঘুরে রোকেয়া হল ও ভিসি চত্বর হয়ে পুনরায় টিএসসি চত্বরে এসে শেষ হয়।

বিজ্ঞাপন

এদিকে সকাল থেকেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের উপ-সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক রিয়াদ হাসানের নেতৃত্বে কবি নজরুল কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অবস্থান নেয় বলে জানিয়েছেন টিএসসিতে থাকা ঘটনার একাধিক প্রত্যক্ষদর্শী। রিয়াদ হাসানের নেতৃত্বে অবস্থান নেওয়া দলটিই কুশপুত্তলিকা কেড়ে নিয়েছেন বলে দাবি করেন ফেডারেশনের একাধিক নেতাকর্মীসহ প্রত্যক্ষদর্শী বেশ কয়েকজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

সারাবাংলা/আরআইআর/এনএস


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button