খেলা

সাইফের সেঞ্চুরি, তুষার-ইমরুলের আক্ষেপ

স্পোর্টস ডেস্ক

জাতীয় ক্রিকেট লিগকে (এনসিএল) যদি আসন্ন শ্রীলঙ্কা সিরিজের প্রস্তুতি ভাবেন তবে প্রস্তুতির শুরুটা দারুণই হলো তরুণ ওপেনার সাইফ হাসানের। রানের মধ্যে থাকা সাইফ এনসিএলের প্রথম দিনেই দারুণ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন। ওদিকে, সেঞ্চুরির কাছে গিয়েও ব্যর্থ হয়েছেন দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান তুষার ইমরান ও ইমরুল কায়েস।

বিজ্ঞাপন

বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে সাইফের সেঞ্চুরিতে রংপুর বিভাগের বিপক্ষে ৭ উইকেটে ২৯৭ রান তুলে আজ প্রথম দিনের খেলা শেষ করেছে ঢাকা বিভাগ। প্রথমে ব্যাটিং করতে নামা ঢাকার শুরুটা হয়েছিল বড্ডই বাজে। দুই ওপেনার আব্দুল মজিদ ও রনি তালুকদার যখন ফিরলেন তখন ঢাকার স্কোরবোর্ডে রান জমাই হয়নি। অন্যদের নিয়ে সেখান থেকে দলকে টেনেছেন সাইফ।

গত ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে সাইফকে না খেলানো নিয়ে বহু প্রশ্ন উঠেছিল। তারপর আয়ারল্যান্ড উলভসের (আয়ারল্যান্ড এ দল) বিপক্ষে বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের হয়ে রানের বন্যা বইয়ে দিলেন সাইফ। তরুণ ওপেনারের সেই ফর্মটা এনসিএলের প্রথম লেগেও অব্যাহত। মাহমুদুল হাসান অঙ্কনকে সঙ্গে নিয়ে প্রথমে শুরুর ধাক্কা কাটিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

অঙ্কন দলীয় ৭৯ রানে ৪৭ রান করে ফিরলে তারপর নাদিফ চৌধুরীকে নিয়ে এগিয়েছেন সাইফ। যাতে শুরুতে বিপদে পড়া ঢাকাও বেশ শক্ত একটা সংগ্রহ পেয়েছে। ঢাকার ইনিংস শেষ পর্যন্ত থেমেছে ২৯৭ রানে। সাইফ ২৩৩ বল খেলে ১১টি চার ৫টি ছক্কার সাহায্যে ১২৭ রান করেছেন। নাদিফ ১০৫ বল খেলে ৮টি চার ২টি ছয়ে ৬৯ রান করেছেন। রংপুরের হয়ে আলাউদ্দিন বাবু ৪টি ও মাহমুদুল হাসান ২টি উইকেট নিয়েছেন।

সাইফের সেঞ্চুরি, তুষার-ইমরুলের আক্ষেপ

বিজ্ঞাপন

ওদিকে, খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে সেঞ্চুরি মিসের জোড়া ঘটনা ঘটল। সিলেট বিভাগের বিপক্ষে সেঞ্চুরি পেতে পারতেন খুলনার হয়ে তিনে ব্যাট করতে নামা ইমরুল কায়েস ও চারে ব্যাট করতে নামা তুষার ইমরান। অথচ সেঞ্চুরি পাননি একজনও। ঘরোয়া ক্রিকেটের রেকর্ড রান সংগ্রাহক তুষার রান আউট হয়েছেন ৯৯ রানের মাথায়। ১১৭ বল খেলে ১৭টি চারের সাহায্যে ৯৯ রানে আবু জায়েদ রাহির ক্ষিপ্র ফিল্ডিংয়ে রান আউট হয়েছেন তুষার। ইমরুল ফিরেছেন ৯০ রানের মাথায়। ১২৭ বল খেলে ১০টি চার ২টি ছক্কার সাহায্যে সেই আবু জায়েদ রাহিরই শিকার হয়েছেন ইমরুল।

তবে দুই অভিজ্ঞ সেঞ্চুরি না পেলেও তাদের ব্যাটে শক্ত অবস্থানে খুলনা। খুলনার প্রথম ইনিংস শেষ পর্যন্ত থেমেছে ৩০৮ রানে। তৃতীয় সর্বোচ্চ ৩৭ রান করেছেন রবিউল ইসলাম রবি। জাতীয় দলে খেলা সিলেটের দুই পেসার আবু জায়েদ রাহি ও ইবাদত হোসেন দুটি করে উইকেট নিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এসএইচএস


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button