স্বাস্থ্য

১৫ ডিসেম্বরের পর সর্বোচ্চ মৃত্যু ৩৯ জন, শনাক্ত আরও ৩৬৭৪

সারাবাংলা ডেস্ক

দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ নিয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন ৩৯ জন। গত ১৫ ডিসেম্বরের পর একদিনে এত বেশি মানুষ করোনা সংক্রমণ নিয়ে মারা যাননি। ওই দিন ৪০ জন মারা গিয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসের নতুন সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ৩ হাজার ৬৭৪ জনের শরীরে। এ নিয়ে গত পাঁচ দিন ধরে টানা সাড়ে তিন হাজারের বেশি সংক্রমণ শনাক্ত হচ্ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণ শনাক্তের হার ছিল ১৪ দশমিক ৯০ শতাংশ। গত ৭ ডিসেম্বরের পর একদিনে নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে এত বেশি হারে সংক্রমণ শনাক্ত হয়নি। ওই দিন নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিল ১৫ দশমিক ২৯ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

শনিবার (২৭ মার্চ) স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানার সই করা এক কোভিড-১৯ সংক্রান্ত নিয়মিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সরকারি ও বেসরকারি আরটি-পিসিআর, জিন-এক্সপার্ট ও র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন মিলিয়ে মোট ২২৪টি ল্যাবরেটরিতে ২৪ হাজার ২৭৬টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এই সময়ে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২৪ হাজার ৬৬৪টি।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় যেসব নমুনা পরীক্ষা হয়েছে, এর মধ্যে ৩ হাজার ৬৭৪ জনের মধ্যে সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে ৫ লাখ ৯১ হাজার ৮০৬ জনের মধ্যে করোনার উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ৯০ শতাংশ, যা গত ৭ ডিসেম্বরের পর সর্বোচ্চ। ওই দিন নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ছিল ১৫ দশমিক ২৯ শতাংশ। আর এখন পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণ শনাক্তের হার ১২ দশমিক ৯৬ শতাংশ।

এদিকে, সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৯৭১ জন। এ নিয়ে দেশে করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থ হলেন ৫ লাখ ৩৩ হাজার ৯২২ জন। সংক্রমণ শনাক্তের বিপরীতে সুস্থতার হার ৯০ দশমিক ২২ শতাংশ।

বিজ্ঞাপন

গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৩৯ জন করোনা সংক্রমণ নিয়ে মারা গেছেন, তা নিয়ে দেশে মোট ৮ হাজার ৮৬৯ জন মারা গেলেন। এই ৩৩ জনের মধ্যে ২৪ জন পুরুষ, ১৫ জন নারী। তাদের সবাই হাসপাতালে মারা গেছেন।

মৃত ৩৯ জনের মধ্যে ২৫ জন ষাটোর্ধ্ব, ১০ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছর। এছাড়া ৩১ থেকে ৪০ বছর বয়সী তিন জন ও ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সী একজন মারা গেছেন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় এই মৃতদের মধ্যে ২৮ জন ঢাকা বিভাগের, পাঁচ জন চট্টগ্রাম বিভাগের। দুই জন করে মারা গেছেন রাজশাহী ও খুলনা বিভাগে। সিলেট ও রংপুর বিভাগেও একজন করে মারা গেছেন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে, শনিবার দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন মোট ৬৬ লাখ ২০ হাজার ৮৬৬ জন। অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার (২৫ মার্চ) পর্যন্ত দেশে এই ভ্যাকসিন গ্রহীতার সংখ্যা পেরিয়ে গেছে অর্ধ কোটি— ৫১ লাখ ৩৯ হাজার ২৬ জন। গতকাল শুক্রবার (২৬ মার্চ) সাপ্তাহিক ছুটি ও স্বাধীনতা দিবসের সরকারি ছুটি থাকায় ভ্যাকসিন প্রয়োগ কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

সারাবাংলা/টিআর


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button