আইন-বিচার

৭ দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

ঢাকা: হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মামুনুল হককে সাতদিনের রিমান্ড আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার (১৯ এপ্রিল) ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবদাস চন্দ্র অধিকারী এ আদেশ দেন।

বিজ্ঞাপন

এর আগে বেলা ১১টার দিকে আদালতে আনা হয় এই হেফাজত নেতাকে। পরে ভাঙচুরের মামলায় তাকে সাত দিনের রিমান্ডে চেয়ে আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাজেদুল হক।

আসামিপক্ষের আইনজীবী জয়নাল আবেদীন মেসবাহ প্রমুখ রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। অপরদিকে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু ও আজাদ রহমানসহ রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা রিমান্ডের পক্ষের শুনানি করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে তাকে সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

বিজ্ঞাপন

৭ দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক

এদিকে পুরান ঢাকার নিম্ন আদালত চত্বর ও আশপাশের এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সকাল থেকেই চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের আশপাশের এলাকায় সাধারণ লোকজন, আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের কঠোর তল্লাশির আওতায় রাখা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

গতকাল রোববার রাজধানীর মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া মাদরাসা থেকে বেলা ১২টার দিকে মামুনুল হককে গ্রেফতার করা হয়।

৭ দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক

বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, ২০২০ সালে মোহাম্মদপুরে একটি ভাঙচুরের মামলায় মামুনুলকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এছাড়াও গত ২৬ মার্চ দেশের বিভিন্ন স্থানে নাশকতা করার অভিযোগে হেফাজত নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মুজিব জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনের বিরোধিতাকালে সহিংস পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এছাড়া হেফাজতে ইসলাম হরতাল দিলে ওইদিনও নাশকতা চালানো হয়। এসব অভিযোগে হেফাজতের বেশ কয়েকজন নেতাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি সোনারগাঁওয়ের একটি রিসোর্টে নারীসহ অবরুদ্ধ হন মামুনুল হক। ঘটনার দিন সোনারগাঁও রয়েল রিসোর্টে হামলা ও ভাঙচুরের ঘটনায় হেফাজতের নেতাকর্মী‌দের আসামি করে তিনটি মামলা হয়। এরমধ্যে একটি মামলায় মামুনুল হক প্রধান আসামি।

বিজ্ঞাপন

সারাবাংলা/এআই/এএম


Source link

আরো সংবাদ

Back to top button